গ্লাসগোয় বনরক্ষার অঙ্গীকার

গ্লাসগোয় বনরক্ষার অঙ্গীকার

বিশ্ব পরিবেশ সম্মেলনে বন সংরক্ষণের অঙ্গীকার নিলো বিশ্বের ২০০টি দেশ। বলা যেতে পারে এ এক ঐতিহাসিক ঐক্যমত। আশু প্রয়োজনীয়ও। স্কটল্যান্ডের গ্লাসগো শহরে গত ৩১ শে অক্টোবর শুরু হয়েছে কনফারেন্স অফ দ্যা পার্টিজ বা কনভেনশন অফ ক্লাইমেট চেঞ্জ (COP 26/ কপ ২৬)। চলবে ১২ই নভেম্বর পর্যন্ত। ২০০টি দেশের রাষ্ট্রপ্রধান – প্রতিনিধিরা অংশগ্রহণ করেছেন এই সম্মেলনে। মুখ্য লক্ষ্য বিশ্ব উষ্ণয়ণ কে ২ ডিগ্রি সেলসিয়াসে বেঁধে রাখা। সম্ভব হলে ১.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসে নামিয়ে আনা। আগামী এক দশককে লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে, অর্থাৎ ২০৩০ সাল পর্যন্ত। বিশ্ব আবহাওয়ায় সংস্থার রিপোর্ট অনুযায়ী ২০১৫ থেকে ২০২১ পরপর এই ৭ বছর বিশ্বের ইতিহাসে উষ্ণতম বছর চলেছে। ২০২১ এর সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বিশ্ব উষ্ণয়ণ বেড়েছে ১.৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

উল্লেখ্য ২০০০ সাল থেকে ১১শতাংশ হারে প্রতি বছর কার্বনের হার বৃদ্ধি পাচ্ছে পরিবেশে। বর্তমানে পৃথিবীর বায়ুমন্ডলে কার্বন-ডাই অক্সাইডের ঘনত্ব প্রতি মিলিয়নে প্রায় ৪১২ শতাংশ বেড়েছে। এই মুহুর্তে পৃথিবীর ৯৫শতাংশ মানুষ দূষিত বাতাসে শ্বাস নেয়। আফ্রিকা ও এশিয়ার দেশগুলি এদিক থেকে শীর্ষস্থানীয়। এবারের সম্মেলনের সভাপতি ব্রিটিশ মন্ত্রী অলোক শর্মা বলেছেন, বিশ্ব উষ্ণয়ণ ১.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে বেঁধে রাখতে হলে এই সম্মেলন বা কপ ২৬ ই শেষ সুযোগ। এবং একারণেই গতকাল অর্থাৎ ২রা নভেম্বর সম্মেলনে বন সংরক্ষণের অঙ্গীকারে ঐক্যমত হয়েছেন রাষ্ট্রপ্রধানরা। এখন দেখার সম্মেলন শেষ পর্যন্ত কী কী কার্যবিবরণী ঠিক করে।