নিজের সঙ্গে কথা বলুন

নিজের সঙ্গে কথা বলুন

কোভিড-১৯ অতিমারিতে বিশ্বজুড়ে মানুষের ঋণাত্মক আবেগ (নেগেটিভ ইমোশন) বৃদ্ধি পেয়েছে। হ্রাস পেয়েছে ধনাত্মক আবেগ (পজিটিভ ইমোশন)। নেচার হিউম্যান বিহেভিয়ার পত্রিকায় প্রকাশিত একটি গবেষণাপত্রে এমনই দাবি করা হয়েছে। গবেষণাপত্রটির লেখক কে ওয়াঙ, অ্যামিট গোল্ডেনবার্গ প্রমুখের বিশ্লেষণ, মানুষের মনে কোভিডের-১৯-এর এই প্রভাবকে মোটেই হালকাভাবে নেওয়া ঠিক হবে না। কারণ এই মানসিক প্রভাবের ফল মানবসভ্যতাকে বহন করতে হবে অনেক দিন। মানুষের মস্তিষ্কে আবেগ নিয়ন্ত্রণের যে কৌশলগুলো চালু থাকে তা অনেকাংশেই হরমোন নির্ভর হলেও, অভ্যাস ও চর্চা বা কোনও কাজে নিজেকে নিযুক্ত রাখার মধ্যে দিয়ে তার প্রকাশ ঘটে। কোভিড-১৯ অতিমারিতে মানুষের দৈনন্দিন অভ্যাসের হেরফের হয়েছে। ফলে তার ব্যাপক প্রভাব পড়েছে মস্তিষ্কে। এই প্রভাব কাটাতে গেলে নিজেকে দায়িত্বশীল মানুষ হিসেবে ভাবতে হবে মানুষকেই। কিন্তু কে বোঝাবে তাদের? দরকার হলে নিজের সঙ্গেই নিজেকে কথা বলতে হবে।