বিশ্ব উষ্ণায়নে হাসপাতালে প্রথম মানুষ!

বিশ্ব উষ্ণায়নে হাসপাতালে প্রথম মানুষ!

সরকারি নথি অনুযায়ী বলা হচ্ছে প্রথমবার। আবহাওয়ার পরিবর্তনে বা বিশ্ব উষ্ণায়নের প্রতিফলনে প্রথম গুরুতরভাবে অসুস্থ হয়ে পড়লেন একজন মানুষ! কানাডায় ৭০ বছর বয়সী এক মহিলাকে গুরুতর অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি হতে হল। এবছরের গোড়ায় কানাডা এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কিছু রাজ্য জুড়ে ভয়ঙ্কর তাপপ্রবাহের ধাক্কা সহ্য করতে না পেরে প্রচুর মানুষ অসুস্থ হয়েছিলেন। মারাও গিয়েছেন অনেক মানুষ। ব্রিটিশ কলম্বিয়ায় এই তাপপ্রবাহ কেড়ে নিয়েছে অন্তত ২৩৩ জনের প্রাণ! কিন্তু ৭০-এর এই মহিলাকে গুরুতর অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করতে হল! কুটেনে লেক হাসপাতালের চিকিৎসক কাইল মেরিট এক বিবৃতিতে জানিয়েছেন, ভয়ঙ্কর তাপপ্রবাহের শিকার ওই মহিলা। এতটাই ডিহাইড্রেশন হয়ে গিয়েছে তার যে, হাইড্রেট্রেড থাকার জন্য মহিলাকে প্রচণ্ড লড়াই করতে হচ্ছে! ওই তাপপ্রবাহের জন্য তার শরীরে একাধিক অসুখ আক্রমণ করেছে।
আবহাওয়াবিদরা জানাচ্ছেন উত্তর-পশ্চিম থেকে প্রবল এক উচ্চচাপের ফলেই আবহাওয়ার এই চরম পরিবর্তন। যে কারণে কানাডা এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের একাধিক রাজ্য জুড়ে তাপপ্রবাহের ঝড় চলেছে। তার প্রতিফলনে হাসপাতালগুলোর বিছানা ভর্তি হয়ে গিয়েছে। চিকিৎসকরা বলছেন প্রচুর মানুষ হিট-স্ট্রোক এবং এই সম্পর্কিত অন্যান্য অসুখে আক্রান্ত হয়েছেন।
মধ্য প্রদেশের ওপর দিয়েও এবছরের গোড়ায় তাপপ্রবাহ চলেছে একইভাবে। কত মানুষ অসুস্থ হয়েছেন, কত মানুষ মারা গিয়েছেন তার হিসেব আমাদের কেন্দ্রীয় সরকার বা মধ্যপ্রদেশের রাজ্য সরকার দেয়নি। আমাদেরও বিশ্ব উষ্ণায়ন বা আবহাওয়ার পরিবর্তন নিয়ে ততটা দুশ্চিন্তা আছে কি? মনে তো হয় না!