হেনস্থা থেকে বাঁচতে রং বদলাচ্ছে হামিং বার্ড!

হেনস্থা থেকে বাঁচতে রং বদলাচ্ছে হামিং বার্ড!

একুশ শতকেও মানুষের সমাজে লিঙ্গবৈষম্য স্পষ্ট। পুরুষতান্ত্রিকতা এখনও সমানাধিকার থেকে নারীকে বঞ্চিত করে রেখেছে। ভারতের গ্রামে গ্রামে ঘুরলেই এই ছবি দেখা যায়। কিন্তু সাম্প্রতিক এক গবেষণায় এক নতুন তথ্য উঠে এসেছে। শুধু মানুষের সমাজ নয়, বন্য পাখিদের মধ্যেও রয়েছে লিঙ্গবৈষম্যের প্রকট অস্তিত্ব! যেমন হামিং-বার্ড। পুরুষ হামিং-বার্ডদের অত্যাচারে অস্থির হয়ে ওঠে মেয়ে হামিং-বার্ড। কিন্তু বাঁচতে তো হবে। তাই লিঙ্গ-হিংসার হাত থেকে বাঁচতে মহিলা হামিং-বার্ডরা তাদের পালকের রং বদলে ফেলছে ক্রমাগত। পানামার বিজ্ঞানীদের করা এই গবেষণায় উঠে এসেছে এই তথ্য। হোয়াইট-নেকড জ্যাকোবিন নামের এক প্রজাতির হামিং-বার্ডের ওপর গবেষণা চালিয়েছিলেন বিজ্ঞানীরা। মধ্য ও দক্ষিণ আমেরিকায় দেখা যায় এই প্রজাতির পাখিদের। তাদের পালকের রং দেখেই বোঝা যায় কে পুরুষ আর কে মেয়ে পাখি। পুরুষ হামিং-বার্ডদের রং বেশি উজ্জ্বল হয়। মহিলা হামিং বার্ডদের মাথার পালকে সবুজ রঙের আভা থাকে। কারেন্ট বায়োলজি পত্রিকায় প্রকাশিত গবেষণার কথা থেকে জানা গিয়েছে, মহিলা হামিং-বার্ডরা তাদের মাথার পালকের রং বদলে ফেলছে ধীরে ধীরে, মূলত পুরুষ হামিং-বার্ডদের অত্যাচার থেকে বাঁচার জন্য। শৈশবে তাদের পালকে যে রং থাকে সেই রং-ই তারা ফিরিয়ে আনছে।