আকাশগঙ্গায় ‘সুনামি’ দেখলেন বিজ্ঞানীরা

আকাশগঙ্গায় ‘সুনামি’ দেখলেন বিজ্ঞানীরা

আকাশগঙ্গায় রয়েছে অসংখ্য তারা আর নক্ষত্র। সেখানেও সুনামির মত ঢেউ ওঠে! সেই ঢেউয়ের রেশ পৃথিবীর আকাশেও এসে পড়ে! সম্প্রতি ইউরোপীয় স্পেস এজেন্সির গাইয়া মহাকাশ পর্যবেক্ষণকেন্দ্র তার অত্যাধুনিক টেলিস্কোপে চোখ লাগিয়ে সেই সুনামি দেখেছে। এই মহাকাশযানের পর্যবেক্ষণে, আকাশগঙ্গায় প্রায় দুই মিলিয়ন তারার রেডিয়াল দোলন তারা দেখেছেন। এই রেডিয়াল দোলনেই সৃষ্টি হয় সুনামির। জ্যোর্তিবিজ্ঞানীদের আশা, এই অভূতপূর্ব দৃশ্য তাদের ভবিষ্যতে সহায়তায় করবে ছায়াপথের পরিকাঠামো আসলে কীরকম ছিল জানতে এবং কয়েক বিলিয়ন বছরে এই ছায়াপথের বির্বতনই বা কীভাবে হয়েছে সেটাও জানতে। এই সুনামির নাম দেওয়া হয়েছে ‘স্টারকোয়েক’। এই আন্দোলনের সময় কী রাসয়নিক উপাদান নির্গত হয়েছে, সেখানকার নাক্ষত্রিক তাপমাত্রা কতটা ছিল, ঢেউয়ের রং কী হয়েছিল, কতটা ভর নির্গত হয়েছে-সব তথ্যই ইউরোপীয় স্পেস এজেন্সি গাইয়া মিশনের টুইটারের মাধ্যমে প্রকাশ করেছে। ২০১৩-তে গাইয়া মিশন মহাকাশে পাঠানো হয়েছিল মূলত ছায়াপথ সম্পর্কে বিশদে তথ্য সংগ্রহ করার জন্য। এই রোবটিক স্পেসক্রাফটে রয়েছে একটি ১ বিলিয়ন পিক্সেল ক্যামেরা! আর ছায়াপথকে দেখার জন্য অত্যাধুনিক থ্রি-ডি ম্যাপ। ছায়াপথের অন্তত ১ মিলিয়ন তারা এই মহাকাশযান দেখার ক্ষমতা রাখে! ছায়াপথ দেখার এত বিশাল মহাকাশযান আর নেই।