কোভিড সংক্রমণ কমছে ‘মিশ্র’ ভ্যাকসিনে!

কোভিড সংক্রমণ কমছে ‘মিশ্র’ ভ্যাকসিনে!

দু’রকম টিকার মিশ্রণে কোভিড-১৯ এর সংক্রমণ কম হচ্ছে! সুইডেনে একটি গবেষণা থেকে এই খবর জানা গিয়েছে। টীকার প্রথম ডোজটা এক ব্যক্তি নিয়েছিলেন অক্সফোর্ড-আস্ট্রা জেনেকা। দ্বিতীয় ডোজটা তিনি নিলেন এমআরএনএ। গবেষকরা জানিয়েছেন, দু’রকম টীকা নেওয়া ব্যক্তিদের শরীরে কোভিড-১৯ এর সংক্রমণ কম হচ্ছে! অন্তত যারা দু’বারই অক্সফোর্ড-আস্ট্রা জেনেকা টীকা নিয়েছিলেন তাদের তুলনায় কম।
সুইডেনে ৬৫ বছরের কম বয়সীদের সকলকেই প্রথম ডোজ দেওয়া হয়েছিল আস্ট্রা জেনেকা টীকা। দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার আগে তাদের সরকারের তরফে দেওয়া হল এমআরএনএ টীকা। সুইডেনের উমিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর পিটার নর্ডস্ট্রম বলেছেন, “আমদের গবেষণা জানাচ্ছে দু’রকমের এই টীকার পর দেশ জুড়ে দেখা গিয়েছে কোভিডের সংক্রমণ কম।” গবেষণাটি প্রকাশিত হয়েছে ল্যান্সেট ম্যাগাজিনের ইউরোপ সম্পর্কিত আঞ্চলিক স্বাস্থ্য জার্নালে। সুইডেনের স্বাস্থ্য দফতর, তার সঙ্গে সুইডেনেরই ন্যাশনাল বোর্ড অফ হেলথ অ্যান্ড ওয়েলফেয়ার বিভাগ যৌথভাবে সার্ভে করেছিল গবেষণাটি চালানোর সময়। সাত লক্ষ মানুষের সাক্ষাৎকার নেওয়া হয়েছিল গবেষণাটি করার সময়। দেখা গিয়েছে, আস্ট্রা জেনেকা আর ফাইজার টীকার মিশ্রণ (দু’বার দু’টো টীকা) প্রয়োগে কোভিড সংক্রমণের সম্ভাবনা ৬৭ শতাংশ কম। আস্ট্রা জেনেকা আর মডার্না টীকার মিশ্রণে কোভিড সংক্রমণের সম্ভাবনা আরও কম, ৭৯ শতাংশ। তুলনামূলকভাবে যে ব্যক্তিরা সুইডেনে দু’বারই আস্ট্রা জেনেকা টীকা নিয়েছেন (ভারতে এই টীকাই কোভিশিল্ড নামে পরিচিত) তাদের মধ্যে কোভিড-১৯ সংক্রমণের সম্ভাবনা গবষকরা দেখেছেন মাত্র ৫০ শতাংশ কম! যদিও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (হু) এই মিক্সড এবং ম্যাচ টীকার প্রয়োগ আর তার প্রতিফলন নিয়ে এখনও কোনও ইতিবাচক উত্তর দেয়নি। তাদের বক্তব্য, গবেষণা আরও গভীরে গিয়ে করতে হবে, না হলে নিশ্চিত হয়ে বলা যাবে না এটাই কোভিডের প্রতিষেধক হল!