চোল যুগের মুদ্রা উদ্ধার তামিলনাড়ুর স্কুল ছাত্রীর

চোল যুগের মুদ্রা উদ্ধার তামিলনাড়ুর স্কুল ছাত্রীর

তামিলনাড়ুর থিরুপুল্লানির বাসিন্দা মুনিশ্বরী দ্বাদশ শ্রেণীর স্কুল ছাত্র। স্কুলে প্রাচীন মুদ্রা ও প্রাচীন মাটির বাসনপত্র চেনাতে শেখানো হয়। আর তাতেই ইউরেকা ঘটে গেল। মুনিশ্বরীর বাবা কৃষিকাজ করেন। মাটিতে লাঙল চষার সময় তিনটি মুদ্রা পেয়ে মেয়েকে দেখান। স্কুলের অভিজ্ঞতাতেই মুনিশ্বরী বোঝে এ মুদ্রার গুরুত্ব অপরিসীম। অনুমান করে মুদ্রাগুলি প্রাচীন চোল রাজত্বের। মুনিশ্বরী বোঝে ঐ স্থানে খনন কার্য চালালে অনেক প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন পাওয়া যাবে। মুনিশ্বরী তিনটি মুদ্রা ভালো করে পরীক্ষা করে তার পর্যবেক্ষণের কথা জানায় প্রত্নতাত্ত্বিক বিভাগকে৷ এরপর তামিলনাড়ুর প্রত্নতত্ত্ব বিভাগ ও আর্কিওলজিকাল সার্ভে অফ ইণ্ডিয়া যৌথভাবে ঐ ছাত্রীর দেখানো স্থানে খননকার্যের প্রস্তুতি নেয়। প্রত্নতাত্ত্বিকরা মেনে ছাত্রীটির ঐ তিন মুদ্রা সম্প্ররকিত পর্যবেক্ষন ও অনুমান নির্ভুল।