নিউক্লিয় আর্ক রিয়্যাক্টরের তাপমাত্রা সুর্যের চেয়েও বেশি!

নিউক্লিয় আর্ক রিয়্যাক্টরের তাপমাত্রা সুর্যের চেয়েও বেশি!

সূর্য এবং তার কক্ষপথই সৌরজগতের উষ্ণতম অঞ্চল নয়? উষ্ণতার নিরিখে সুর্যকেও ছাপিয়ে গেল পৃথিবীর ওপর লুকিয়ে থাকা এক অঞ্চল! যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ড থেকে কয়ে মাইল দূরে রয়েছে দক্ষিণ ডিডকট শিল্পাঞ্চল। সাধারণ মানুষ সেখানে থাকে না বললেই চলে। ছোট্ট এই শিল্পাঞ্চলের মধ্যেই তৈরি হয়েছে একটি প্রকোষ্ঠ বা ওয়্যারহাউস। এখানেই গবেষকরা তৈরি করেছেন কৃত্রিম এক সূর্য! যার উষ্ণতা পাঁচ কোটি ডিগ্রি সেলসিয়াস! প্রায় ছ’দশক আগে সোভিয়েত গবেষকরা প্রথমবার সফল হয়েছিলেন নিউক্লিয় সংযোজন বিক্রিয়াকে বাস্তবায়ন করতে। এই পারমাণবিক বিক্রিয়াই শক্তি সরবরাহ করে সুর্যকে। সোভিয়েত গবেষকদের উদ্দেশ্য শক্তি উৎপাদন করা ছিল না। যুদ্ধাস্ত্র নির্মাণে তারা এই কাজ করেছিলেন। পরবর্তী ৬০ বছরে প্রযুক্তির পরিবর্তন এসেছে। যার সাম্প্রতিকতম প্রতিফলন বিভিন্ন সংস্থার নিউক্লিয় ফিউশনকে বাণিজ্যিকীকরণ করার অবিরাম চেষ্টা, এদের মধ্যে অন্যতম ব্রিটিশ সংস্থা টেকোমার্ক এনার্জি। এদের উদ্যোগেই তৈরি হয়েছে কৃত্রিম সূর্য। এই সংস্থার তৈরি করা নিউক্লিয় আর্ক রিয়্যাক্টরের তাপমাত্রা পাঁচ কোটি ডিগ্রি সেলসিয়াস। ভবিষ্যতে নিউক্লিয় শক্তির সংযোজনকে কাজে লাগিয়েই শক্তি উৎপাদনের কথা চিন্তা করছেন বিজ্ঞানীরা।