প্রেসিডেন্সির লিনিয়েন সোসাইটি যোগ

প্রেসিডেন্সির লিনিয়েন সোসাইটি যোগ

লণ্ডনের লিনিয়ান সোসাইটির সদস্যপদে নির্বাচিত হলেন প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়ের জীববিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক ড. সুমিত মণ্ডল। লিনিয়ান সোসাইটি পৃথিবীর সবচেয়ে পুরাতন জীববিদ্যা বিষয়ক সংগঠন। চলতি বছরের গোড়ায় ‘ইউরোপীয়ান জার্নাল ওব ট্যাক্সোনমি’তে প্রকাশ পেয়েছিল সুমিত মণ্ডলের গবেষণা – সুন্দরবন অঞ্চলে প্রাপ্ত নতুন এক অঙ্গুরীমাল প্রাণীর ওপর। ঠাকুরান নদীতে প্রাণীটির সন্ধান পান প্রেসিডেন্সির গবেষকরা।
১৭৮৮ সালে উদ্ভিদ বিজ্ঞানী স্যার জেমস এডওয়ার্ড স্মিথ গড়ে তুলেছিলেন জীববিদ্যার এই আদি সংগঠন। যে সময়ে পৃথিবীতে শুরু হয়েছে নতুন প্রাণ ইত্যাদি নিয়ে বস্তুনিষ্ঠ গবেষণা তখন বিভিন্ন প্রজাতির বৈজ্ঞানিক নামকরণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন কার্ল লিনিয়াস। লিনিয়াসের নামেই স্মিথ গড়ে তোলেন এই সংগঠন। ১৮০২ সালে ইংল্যাণ্ডের রাজপরিবারের থেকে মেলে স্বীকৃতি- রয়্যাল চার্টার। এই সোসাইটির ফেলো হয়েছিলেন, চার্লস ডারউইন, জন ফ্র‍্যাঙ্কলিনের মতো বিজ্ঞানীরা। বছর দুই আগে ২০১৮ সালে প্রথম ভারতীয় হিসেবে অশোকা ট্রাস্ট ফর রিসার্চ ইন ইকোলজি অ্যাণ্ড এনভায়রনমেন্ট এর প্রেসিডেন্ট ও বস্টনের ম্যাসাচুসেটস ইউনিভার্সিটির জীববিদ্যার অধ্যাপক কমলজিৎ ভাবা লিনিয়েন মেডেল পান। ২০২০ সালের জুলাই মাসে ইণ্ডিয়ান কাউন্সিল অফ ফরেস্ট রিসার্চ অ্যান্ড৷ এডুকেশানের ডিরেক্টর জেনারেল ড. অশ্বিনী কুমার এই সোসাইটির ফেলো নির্বাচিত হয়েচজিলেন। এবার লিনিয়েন সোসাইটির সাথে জুড়লো আর এক ভারতীয়ের নাম।