ভেড়াদের দলেও নেতা বদলায়, তেমনই বলছে পদার্থবিদ্যার গবেষণা

ভেড়াদের দলেও নেতা বদলায়, তেমনই বলছে পদার্থবিদ্যার গবেষণা

লুই গোমেজ-নাভা, রিচার্ড বন এবং ফার্নান্দো পেরুয়ানি – এই তিনজন ইউরোপের বিখ্যাত পদার্থবিদ। কিন্তু তাঁরা পড়ে আছেন ভেড়াদের নিয়ে। এই বিজ্ঞানীরা ভেড়াদের ছোট ছোট দলের সমষ্টিগত চরিত্র বুঝতে প্রয়োগ করলেন পদার্থবিদ্যার তত্ত্ব। নেচার ফিজিক্স পত্রিকায় প্রকাশ হয়েছে তাঁদের গবেষণার খবর। তাতে দেখা যাচ্ছে দলের নেতা আর অনুগামীরা মাঝেমধ্যেই বদলে যায়। এ থেকে দলের মধ্যে একটা ‘সামগ্রিক বুদ্ধিমত্তার’ জন্ম হয়।
পেরুয়ানি বলছেন, যূথচর প্রাণীদের ক্ষেত্রেও কিন্তু একসাথে একস্থান থেকে অন্য স্থানে যাওয়ার ব্যাপারটা একটানা নয়। বরং এটা এপিসোডে ঘটে। দলগত যাত্রার মধ্যে বিশ্রাম বা খাদ্যগ্রহণের জন্য বিরতি থাকে। অনেক সময়েই গোষ্ঠীর আচরণ ও গন্তব্যের দিক একক প্রাণীরা ঠিক করে দেয়। অর্থাৎ এই ক্ষেত্রে কোনও একটা বা দুটো ভেড়া ঠিক করে দেয় কোনদিকে যাবে গোটা দলটা।
গবেষক দল এটাও লক্ষ্য করেছেন যে ভেড়াদের দলগত আচরণ থেকে একটা বেশ কড়া ধাঁচের হায়ারার্কিকাল নকশা পাওয়া গেছে। এবং বিশেষ একটা ভেড়া দলের ঠিক কোন অবস্থানে দাঁড়িয়ে আছে, একমাত্র সেই অথ্যই তাদের মধ্যে আদানপ্রদান হয়।
এটা থেকে দলগত প্রাণীদের নিয়ে একটা মডেল তৈরি করেছেন গবেষকরা। মূল দুটো বিষয়ে জোর দেওয়া হয়েছে। এক, নির্দিষ্ট সময়ের জন্য একজন দলনেতা বেছে নেওয়া যাকে অনুসরণ করবে বাকি দলটা। আর দুই, চলতে চলতে একটা সময় পর সেই দলনেতাকে পাল্টে নিয়ে, অন্য কোনও অনুগামীকে সেই দায়িত্ব দেওয়া।