মহাকাশে লঙ্কাচাষ

মহাকাশে লঙ্কাচাষ

গত ৩০ শে অক্টোবর ইতিহাস তৈরি করলো নাসার কেনেডি স্পেস স্টেশান। ঐদিন মহাকাশে প্রথম চাষ করা লঙ্কায় কামড় দিলেন কেনেডি স্পেস স্টেশনের বাসিন্দা আমেরিকার অ্যাস্ট্রোনট মেগান ম্যাকআর্থার সহ ৬ মহাকাশাচারী। শুক্রবার মেক্সিকান ফুড ট্যাকো রেঁধে ডিনার টেবিল সাজান ম্যাকআর্থার-সেই ছবি ট্যুইট করে মেগান লিখেছেন – ফ্রাইডে ফেস্টিং। বাংলায় শুক্রবারের মহাভোজ।
ভূপৃষ্ঠ থেকে গড়ে ৪০০ কিমি উচ্চতায় ঘুর্নায়মান স্পেশ স্টেশানটির আয়তন একটি ফুটবল মাঠের সাইজের। ৫টি বেডরুম,২টি বাথরুম ও ১টি জিম সমন্বিত স্পেস স্টেশানটির গতি ঘন্টায় ২৮৮০০ কিমি। পৃথিবীকে প্রতি ৯২ মিনিটে একবার প্রদক্ষিণ করে। আমাদের হিসেবে একদিনে ১৬ বার সূর্যাস্ত সূর্যোদয় দেখতে পান কেনেডি স্পেস স্টেশানের বাসিন্দারা। একসাথে সর্বোচ্চ ৬ জন থাকতে পারে স্পেস স্টেশানটিতে। ১৯৯৮ সালে শুরু করে ২০০০ এ এসে প্রথম বাসিন্দা হন কেউ এই স্টেশনের। এখনো পর্যন্ত ২৪২ জন মহাকাশচারী এই স্টেশনের বাসিন্দা হয়েছেন।২০১৫থেকে স্পেস স্টেশনে সবজি ফলানোর গবেষণা চলছে। এখনো পর্যন্ত ১০ রকমের সবজি চাষ সম্ভব হয়েছে। এবারে ফললো লঙ্কা। লঙ্কা ফলানোর জন্যে নাসা খুঁজে বের করে হ্যাট চিলি পেপার। এমনিতে লঙ্কা কম গ্র‍্যাভিটি যুক্ত স্থানে চাষের উপযুক্ত। তাছাড়াও লঙ্কা পরাগ মিলনে আত্মনির্ভর। বেসবল মাঠে ব্যবহৃত কাদামাটি ব্যবহার করে ৪৮ টি লঙ্কা বীজ ছড়ানো হয় স্পেশ স্টেশানে। ৩ জুন পাঠানো হয়েছিলো বীজগুলি। ১২ই জুলাই থেকে শুরু হয় পরীক্ষা। অক্টোবরের শেষে এসে ফললো লঙ্কা। ম্যাকআর্থারা তাতে কামড় দিয়ে সাক্ষি থাকলেন ইতিহাসের।