রিংটোন ব্যবহারে অনীহা!

রিংটোন ব্যবহারে অনীহা!

তরুণদের মধ্যে রিংটোন ব্যবহারকারীর পরিমাণ কমছে দ্রুতহারে। অথচ রিংটোনই মুঠোফোনে বার্তা বা ফোন কলের ইন্ডিকেটর হিসেবে কাজ করে। তথ্য বলছে সাম্প্রতিক বছরগুলিতে রিংটোন ডাউনলোড করার হার কমেছে এক চতুর্থাংশ। সেলফোন অ্যাপ বিশ্লেষক প্রতিষ্ঠান ‘সেন্সর টাওয়ার’- এর প্রতিবেদন বলছে, যুক্তরাজ্যে মুঠোফোন ব্যবহারকারীদের মধ্যে রিংটোন অ্যাপ ডাউনলোডের পরিমাণ ২০১৬ তে ছিল ৪৬ লক্ষ, ২০২০ তে তা হয়েছে ৩৭ লক্ষ। অর্থাৎ চার বছরে ২০% হ্রাস। কিন্তু কেন রিংটোনে এই অনীহা?

কিছু বিশ্লেষক ব্রিটিশ পত্রিকা দ্য টেলিগ্রাফে জানাচ্ছেন দুটি সম্ভাব্য কারণ –
এক, তরুণরা বেশিরভাগ সময় কাটান মুঠোফোনেই। চোখ থাকে সেলফোনেই। ফলে রিংটোনের প্রয়োজন থাকে না আর।
দুই, পরিধেয় প্রযুক্তির ব্যবহার। যেমন স্মার্টওয়াচ, যা মুঠোফোনের সঙ্গেই যুক্ত। ফলে নোটিফিকেশন এলে কবজিতে ডিভাইসের কম্পনেই তা জানা যায়।
আগামী দিনে মুঠোফোনে আগত ফোন কলের খবর জানান দিতে রিং টোনের বদলে অন্য কিছু প্রযুক্তি আসে কি না, এইটা এখন দেখার।