শাড়ি যখন খাবার

শাড়ি যখন খাবার

রাস্তায় চলতে চলতে খুব খিদে পেয়েছে। তড়িঘড়ি একটা দোকান খুঁজি আমরা। মিষ্টির, নিদেনপক্ষে চায়ের। দুটো মিষ্টি, জল বা বিস্কুট, কেক কিছু একটা দিয়ে পেটের খিদে মেটাই। কিন্তু ধরুন, দুপুর বেলা। অচেনা জায়গা। দোকানপাট আশেপাশে খোলা নেই। এদিকে হাঁটার জোরও নেই একদম। পেট চুঁই চুঁই করছে। কি করবেন?
সহজ উত্তর দিয়েছেন কেরালার বহুপ্রতিভার অধিকারী আনা এলিজাবেথ জর্জ। উত্তরটাও চমকপ্রদ। আপনার পরনের শাড়ির এক প্রান্ত চিবিয়ে খেয়ে নেবেন। পেট ভরবে। মনও।
এও সম্ভব?
সম্ভব।
স্টার্চের ওয়েফার কাগজে এলিজাবেথ বানিয়েছেন এই শাড়ি। এই কাগজ বস্তুত কেক তৈরির উপাদান। ১০০টি এমন কাগজ জুড়ে আনা বানিয়েছেন শাড়িটি। শাড়ির ওজন প্রায় ২ কেজি। একটি শাড়ি বানাতে খরচ হয়েছে প্রায় ৩০ হাজার টাকা।
এলিজাবেথ শিশুকালে খাওয়া যায় এমন রুমাল দেখেছিলেন, তা থেকেই এমন শাড়ি বানানোর পরিকল্পনা। তারপর একদিন মায়ের একটি ‘কসাভু’ শাড়ি দেখে সেই ডিজাইনেই এই শাড়ির ডিজানেই করার পরিকল্পনা করেন অভিনব শাড়িটি। এলিজাবেথ ‘কসাভু’ ডিজাইন ফুটিয়ে তুলেছেন শাড়িতে।

নিজের ইন্সটাগ্রাম প্রোফাইলে শেয়ার করেছেন শাড়িটি। ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে শাড়িটি বানানোর টুকরো মুহুর্ত, আনা পরে আছেন শাড়িটি এবং আঁচল ছিঁড়ে খাচ্ছেন। শিরোনাম দিয়েছেন- ‘ওয়ার্ল্ড ফার্স্ট রিয়েল সাইজ এডিবেল শাড়ি’। তবে এখনই বাজারজাত করার কথা কিছু জানাননি এলিজাবেথ।