সাধারণ সর্দি কাশি থেকে কয়েকটি ক্ষেত্রে শরীরে রক্ত জমাট বাঁধছে

সাধারণ সর্দি কাশি থেকে কয়েকটি ক্ষেত্রে শরীরে রক্ত জমাট বাঁধছে

প্লেটলেট বা থ্রম্বোসাইট এক ধরনের রক্তকণিকা, যখন আমাদের শরীরের কোথাও আঘাতের ফলে কেটে ছড়ে যায় সেখানে প্লেটলেট রক্ত জমাট বাঁধিয়ে রক্তক্ষরণ বন্ধ করে। ভাইরাল সংক্রমণ, অটোইমিউন রোগ এবং অন্যান্য অবস্থার কারণে সারা শরীরে প্লেটলেটের মাত্রা কমে যেতে পারে, যাকে থ্রম্বোসাইটোপেনিয়া বলা হয়।
একটি ৫ বছর বয়সী বালকের অ্যাডিনোভাইরাস সংক্রমণ হয়েছিল, কিন্তু, তার মস্তিষ্কে রক্ত জমাট বাঁধার জন্য তাকে হাসপাতালে ভর্তি হতে হয়েছিল এবং চিকিত্সকরা নির্ধারণ করেছেন গুরুতর থ্রম্বোসাইটোপেনিয়া হয়েছে, কিন্তু সে হেপারিন বা অ্যাডিনো-ভেক্টর COVID-19 টিকার সংস্পর্শে আসেনি। অপর একজন রোগীর একাধিক স্থানে রক্ত জমাট বাঁধা, স্ট্রোক, হার্ট অ্যাটাক, বাহু এবং পায়ের গভীর-শিরা থ্রম্বোস এবং গুরুতর থ্রম্বোসাইটোপেনিয়া ছিল। এই রোগী হেপারিন বা ভ্যাকসিনের সংস্পর্শে না এলেও তিনি অ্যাডেনোভাইরাল সংক্রমণ অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন।
এর থেকে দেখা যাচ্ছে যে শিশু এবং প্রাপ্তবয়স্ক রোগীর খুব সাধারণ অ্যাডিনোভাইরাসে শ্বাসযন্ত্রের সংক্রমণ ঘটলেও প্রাণঘাতী রক্ত জমাট বাঁধা ব্যাধি হতে পারে। অ্যাডিনোভাইরাসে হালকা ঠান্ডা এবং ফ্লুর মতো উপসর্গ সৃষ্টি হয় কিন্তু তা রক্ত জমাট বাঁধা এবং গুরুতর থ্রম্বোসাইটোপেনিয়ার সাথে যুক্ত হচ্ছে বলে মনে করা হচ্ছে। নিউ ইংল্যান্ড জার্নাল অফ মেডিসিনে, প্রকাশিত পর্যবেক্ষণ, অ্যাডিনোভাইরাস এবং অ্যান্টি-প্ল্যাটলেট ফ্যাক্টর 4 ডিসঅর্ডার সৃষ্টিতে এর ভূমিকা সম্পর্কে নতুন আলোকপাত করেছে। অ্যান্টিবডি হল বড় Y-আকৃতির প্রোটিন যা ব্যাকটেরিয়া এবং বাইরে থেকে আগত কোনো জীবের পৃষ্ঠদেশের সাথে লেগে তাদের চিহ্নিত করে, যাতে প্রতিরোধ ব্যবস্থা দ্বারা ধ্বংস করা সেই বস্তুটি সরানো যায় বা ব্যাকটেরিয়াজনিত বিপদ কাটিয়ে দেওয়া যায়। অ্যান্টি-PF4 ব্যাধিতে, মানুষের ইমিউন সিস্টেমে প্লেটলেটের এই প্রোটিনের প্লেটলেট ফ্যাক্টর-4 (PF4) বিরুদ্ধে অ্যান্টিবডি তৈরি করে। যখন অ্যান্টিবডি PF4 এর সাথে আবদ্ধ হয়, তখন এটি রক্ত প্রবাহে প্লেটলেট কমিয়ে দেয় ফলে রক্ত জমাট বাঁধতে থাকে। উভয় রোগীরই HIT বা VITT-এর মতো ব্যাধি ছিল, যেখানে অ্যান্টিবডিগুলি প্লেটলেট ফ্যাক্টর 4 লক্ষ্য করে আবদ্ধ হচ্ছে আর যা অ্যাডিনোভাইরাস সংক্রমণের সাথে যুক্ত।