সার্জিক্যাল মাস্কেই কোভিড প্রতিরোধ

সার্জিক্যাল মাস্কেই কোভিড প্রতিরোধ

মুখে লাগানো মাস্কই কোভিড সংক্রমণের আসল প্রতিরোধ! মাস্ক মানে গবেষকরা জানাচ্ছেন, সার্জিক্যাল মাস্ক। সম্প্রতি বাংলাদেশে একটি গবেষণা হয়েছে। ৬০০ টি গ্রাম মিলিয়ে মোট সাড়ে তিন লক্ষ মানুষকে নিয়ে গবেষণাটি করা হয়। এখনও পর্যন্ত কোভিড-১৯ সংক্রান্ত বিষয়ে গোটা পৃথিবী জুড়ে যত মানুষকে নিয়ে সার্ভে করা হয়েছে তার মধ্যে এটি সর্ববৃহৎ। যে গ্রামগুলোতে মানুষদের সার্জিক্যাল মাস্ক বিতরণ করা হয়েছিল পরবর্তীকালে তাদের ট্রিটমেন্ট করতে গিয়ে দেখা গিয়েছে, সেখানে সংক্রমণের হার কম। গবেষকরা জানিয়েছেন, গ্রামের সমস্ত সম্প্রদায়ের মানুষ যদি সার্জিক্যাল মাস্ক পরা শুরু করেন তাহলে সামগ্রিকভাবে মানুষের স্বাস্থ্য ভাল থাকবে।
গবেষকরা এ-ও জানিয়েছেন, মাস্ক সাধারণত দু’রকমের হয়, সার্জিক্যাল আর কাপড়ের। সার্ভে করার সময় দু’রকমের মাস্কই বিতরণ করা হয়েছিল মানুষের মধ্যে। দেখা গিয়েছে সার্জিক্যাল মাস্ক পরা মানুষদের মধ্যে সংক্রমণের হার কাপড়ের মাস্ক পরা মানুষদের তুলনায় ১১ শতাংশ কম। এই মানুষ বোঝানো হয়েছে ৬০ বছর বয়েসের নীচে থাকা মানুষ। আর সিনিয়র সিটিজেনদের ক্ষেত্রে সার্জিক্যাল মাস্ক পরার প্রভাব আরও ভাল। গবেষকদের জানানো পরিসংখ্যানে সংক্রমণের হার ৩৫ শতাংশ কম ষাটোর্ধদের। গবেষকরা বলছেন, সার্জিক্যাল মাস্কের পলিপ্রোপাইলিনের তিনটি স্তর থাকে যার ৯৫ শতাংশ পরিস্রাবণ ক্ষমতা। কাপড়ের মাস্কের যে ক্ষমতা নেই। তাছাড়া সার্জিক্যাল মাস্ক তৈরি করার খরচ কম, দ্রুত তৈরিও করা যায়। গ্রীষ্মকালে সার্জিক্যাল মাস্ক অনেক বেশি আরামপ্রদ। গবেষণাটি চালানো হয়েছিল ২০২০-র নভেম্বর থেকে ২০২১-এর এপ্রিল পর্যন্ত।